এককথায় প্রকাশ বা বাক্য সংকোচন বা একপদীকরণ

গুরুত্বপূর্ণ এককথায় প্রকাশ – সকল শ্রেণীর সকল পরীক্ষার উপযোগী করে এককথায় প্রকাশ বা বাক্য সংকোচন বা একপদীকরণ দেওয়া হল।

Table of Contents

এককথায় প্রকাশ

এককথায় প্রকাশ কাকে বলে?

বাক্যকে সংক্ষিপ্ত এবং শ্রুতিমধুর করবার জন্যে অনেকগুলি পদকে একপদে পরিণত করাকে বাক্য সংকোচন বা এককথায় প্রকাশ বা একপদীকরণ বলা হয়।

অ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

  • অনেক লোকের সমাবেশ – জনতা।
  • অতি নিকৃষ্ট নর – নরাধম ।
  • অতিশয় উচ্চ – অত্যুচ্চ।
  • অতিথির আপ্যায়ন – আতিথ্য।
  • অধ্যাপনা করেন যিনি – অধ্যাপক।
  • অনু (পেছনে) যে গমন করে – অনুগামী
  • অদিতির পুত্র – আদিত্য।
  • অধিক উক্তি – অত্যুক্তি।
  • অনুকরণ করিবার ইচ্ছা – অনুচিকির্ষা।
  • অনুরাগ দূর হয়েছে যার – বীতরাগ।
  • অরণ্যে জাত – আরণ্যক।
  • অহঃ ও রাত্রি – আহোরাত্রি।
  • অহ্নের (দিনের) পূর্বাংশ – পূর্বাহ্ন।
  • অহ্নের (দিনের) শেষ অংশ – অপরাহ্ন।
  • অক্ষির অগোচর – পরোক্ষ।
  • অক্ষির সম্মুখে – প্রত্যক্ষ।
  • অন্ত নাই যার – অনন্ত ।
  • অন্য যুগ – যুগান্তর।
  • অচঞ্চল মতি যার – স্থিরমতি।
  • অজানা বিষয়ে জানার আগ্রহ – অনুসন্ধিৎসা।
  • অতি উচ্চ স্বর – তারস্বর।
  • অতি উন্নত মতি যার – মহামতি ।
  • অরিকে দমন করেছে যে – অরিন্দম।
  • অন্য ভাষায় রূপান্তরিত – অনূদিত।

আ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

আকাশে চরে যে – খেচর।

আদরের কন্যা – দুলালি।

আকাশ মারফত প্রেরিত বাণী – আকাশবাণী

ই-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

ইন্দ্রকে জয় করেছেন যিনি – ইন্দ্রজিৎ।

ইচ্ছার অনুরূপ – ঐচ্ছিক।

এ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

একই মায়ের ভাই – সহোদর।

একই গুরুর শিষ্য – সতীর্থ।

এ পর্যন্ত যার শত্রু জন্মেনি – অজাতশত্রু।

য-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

  • যা মাটি ভেদ করে ওঠে – উদ্ভিদ।
  • যা গতিশীল – জঙ্গম।
  • যার বিনাশ নেই – অবিনশ্বর।
  • যে রোগ নির্ণয়ে হাতড়িয়ে মরে – হাতুড়ে
  • যে গাছ ফল পাকলে মারা যায় – ওষধি।
  • যা চোখে দেখা যায় – চাক্ষুষ।
  • যে দর্শন করে – দর্শক।
  • যা দেখা যায় না – অদৃশ্য।
  • যে শিক্ষা দেয় – শিক্ষক।
  • যে একবার খায় – একাহারী।
  • যে কানে শুনে না – বধির।
  • যেখানে ঘোড়াকে রাখা হয় – আস্তাবল
  • যিনি দান করেন—দাতা।
  • যিনি ব্যাকরণ জানেন – বৈয়াকরণ।
  • যা দিয়ে দূরের দৃশ্য দেখা যায় – দূরদর্শন।
  • যা সহজে পাওয়া যায় না – দুর্লভ।
  • যার দয়া নেই – নির্দয়।
  • যা করা উচিত – কর্তব্য।
  • যা সম্ভব নয় – অসম্ভব।
  • যা সহ্য করা যায় না – অসহ্য।
  • যা দিয়ে দূরের জিনিস দেখা যায় – দূরবিন।
  • যেখানে যাওয়া যায় না – অগম্য।
  • যা জানা যায় না – অজ্ঞেয়।
  • যে মায়া জানে না – অমায়িক।
  • যে উপকারীর উপকার স্বীকার করে না – অকৃতজ্ঞ।
  • যে যন্ত্রে বিনা তারে দূরে খবর পাঠানো হয় – বেতার
  • যার নাম জানা যায়নি – অজ্ঞাতনামা।
  • যা অবশ্যই হবে – অবশ্যম্ভাবী।
  • যা মাটি ভেদ করে ওঠে – উদ্ভিদ।
  • যাতে আমিষ নেই – নিরামিষ।
  • যেখানে গমন করা কঠিন – দুর্গম।
  • যে যন্ত্র দ্বারা অণুকে দেখা যায় – অণুবীক্ষণ।
  • যা অতি কষ্টে নিবারণ করা যায় – দুর্নিবার।
  • যা অতি দীর্ঘ নয় – নাতিদীর্ঘ।
  • যার ঈশ্বরে বিশ্বাস নেই – নাস্তিক।
  • যা দেওয়া যায় না – অদেয়।
  • যা সহজে ভেঙে যায় – ভঙ্গুর।
  • যে নারী প্রিয় কথা বলে – প্রিয়ংবদা ।
  • যার ঈশ্বরে বিশ্বাস আছে – আস্তিক।
  • যার মূল্য নির্ণয় করা যায় না – অমূল্য।
  • যার মৃত্যু নেই – অমর।
  • যা বালকের মধ্যেই সুলভ- বালসুলভ
  • যা লাফিয়ে চলে- প্লবগ
  • যা বুকে হাঁটে- সরীসৃপ
  • যা বলার যোগ্য নয়- অকথ্য
  • যা চুষে খাওয়া যায়- চুষা
  • যে গাছ অন্য গাছের ওপর জন্মে- পরগাছা
  • যে নারীর পুত্রসন্তান হয়নি- অপুত্রক
  • যে পরিণাম বোঝে না- অপরিণামদর্শী
  • যে গাছে ফল ধরে, কিন্তু ফুল ধরে না- বনস্পতি
  • যে জামাই শ্বশুরবাড়ি থাকে- ঘরজামাই
  • যে মেয়ের বিয়ে হয়নি – অনূঢ়া
  • যা জলে জন্মে- জলজ
  • যে পরে জন্মগ্রহণ করেছে- অনুজ
  • যা দেখা যাচ্ছে দৃশ্যমান
  • যা পূর্বে ছিল এখন নেই- ভূতপূর্ব
  • যা একইভাবে চলে- গতানুগতিক
  • যা বাক্যে প্রকাশ করা যায় না- অবর্ণনীয়
  • যা কষ্ট করে জয় করা যায়- দুর্জয়
  • যে জমিতে দুবার ফসল হয় দো- ফসলা
  • যে সংবাদ বহন করে- সাংবাদিক
  • যে অত্যাচার করে অত্যাচারী
  • যে শব্দ বাধা পেয়ে ফিরে আসে- প্রতিধ্বনি
  • যা হবেই বা হইবে- ভাবী
  • যা সহজে দমন করা যায় না- দুর্দমনীয়
  • যা মাটি ভেদ করে ওঠে- উদ্ভিদ
  • যে অন্যের অধীন নয়- স্বাধীন
  • যে নৌকা চালায়- মাঝি
  • যা ফুরায় না- অফুরান
  • যার ক্ষয় নেই – অক্ষয়।
  • যে পালন করে – পালক।
  • যেখানে মৃত জীবজন্তু ফেলা হয় – ভাগাড় বা উপশল্য।
  • যেখানে লোকজন বাস করে- লোকালয়
  • যে উপকারীর উপকার স্বীকার করে- কৃতজ্ঞ
  • যে হিংসা করে- হিংসক
  • যে উপকারীর অপকার করে- কৃতঘ্ন
  • যে বিদেশে থাকে- প্রবাসী
  • যে আকাশে চরে খেচর
  • যা মর্ম স্পর্শ করে- মর্মস্পর্শী
  • যা সহজে লাভ করা যায়- সুলভ
  • যা সহজে লাভ করা যায়- সুলভ
  • যা সহজে ভেঙে যায়- ভঙ্গুর

যা জলে চরে- জলচর

যে বৃক্ষের ফুল না হলেও ফল হয়- বনস্পতি

যা কষ্টে লাভ করা যায়- দুর্লভ

যা পূর্বে ঘটেনি- অভূতপূর্ব

যার তল স্পর্শ করা যায় না- অতলস্পর্শী

যার বিশেষ খ্যাতি আছে- বিখ্যাত

যার নাম কেউ জানে না- অজ্ঞাতনামা

যার পত্নী গত হয়েছে- বিপত্মীক

যার ভাতের অভাব- হাভাতে

যার মমতা নেই- নিৰ্মম

যার তুলনা হয় না- অতুলনীয়

যার সীমা নেই- অসীম

যার তুলনা নেই- অতুলনীয়

যার অন্ত নেই- অন্তহীন

যা বনে চরে- বনচর

যা সহজেই ভেঙে যায়- ঠুনকো।

যে বিষয়ে কোন বিতর্ক বা বিসংবাদ নেই- অবিসংবাদী।

যার শত্রু জন্মায়নি- অজাতশত্রু

চ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

চৈত্রমাসের ফসল – চৈতালি।

চোখের কোণ – অপাঙ্গ।

স-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

সৃষ্টি করবার ইচ্ছা – সিসৃক্ষা।

সবচেয়ে ছোটো – কনিষ্ঠ।

সবচেয়ে বড়ো – জ্যেষ্ঠ।

সর্বজন সম্বন্ধীয় – সর্বজনীন।

ন-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

নীলবর্ণ পদ্ম – ইন্দীবর।

নারীর উদ্দাম নৃত্য – লাস্য।

শ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

শ্বেতবর্ণ পদ্ম – পুণ্ডরীক

ম-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

মাসের শেষ দিন – সংক্রান্তি।

মাসের প্রথম দিন – পহলা।

মায়া আছে যার – মায়াবি।

মধু পান করে যে – মধুপ।

মধুর ধ্বনি- মধুরা

মরণ পর্যন্ত- আমরণ

মৃতের মতো অবস্থা- মুমূর্ষু

মেধা আছে যার মেধাবী

ময়ূরের ডাক – কেকা

মায়ের মতো যে ভূমি – মাতৃভূমি

মিষ্টি কথা বলে যে- মিষ্টভাষী

ময়ূরের ডাক – কেকা।

ব-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

ব্যাঙের বাচ্চা – ব্যাঙাচি।

বিনা বেতনে কাজ – অবৈতনিক।

ঘ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

ঘোড়ার ডাক – হ্রেষা।

ভ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

ভিক্ষার অভাব – দুর্ভিক্ষ।

ভিক্ষার অভাব- দুর্ভিক্ষ

ভাষা সম্পর্কে যিনি বিশেষ জ্ঞান রাখেন- ভাষাবিদ

ভোজন করতে ইচ্ছুক- বুভুক্ষু

ভাবা যায় না এমন- অভাবনীয়

ভ্রমরের গান- গুঞ্জন

ক-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

কোথাও উঁচু, কোথাও নীচু – বন্ধুর।

কোকিলের ডাক – কুহু

কর দেয় যে – করদ।

কুন্তীর পুত্র – কৌন্তেয়।

র-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

রক্তবর্ণ পদ্ম – কোকনদ।

দ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

দশরথের পুত্র – দাশরথি।

খ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

খুন করার উদ্দেশ্যে আগত আক্রমণকারী – হত্যাকারী বা আততায়ী।

প-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

পান করবার ইচ্ছা – পিপাসা।

পারের কড়ি – পারানি।

পুরুষের উদ্দাম নৃত্য – তাণ্ডব।

পংকে জন্ম যা – পঙ্কজ।

পরিব্রাজকের ভিক্ষা- মাধুকরী।

পাখির ডাক – কাকলি।

পাখির কলরব – কাকলি।

পা থেকে মাথা পর্যন্ত – আপাদমস্তক।

হ-বর্ণ দিয়ে শুরু হয়েছে এরকম এককথায় প্রকাশ

হরিণের চামড়া – অজিন।

হিমালয় হতে সমুদ্র পর্যন্ত – আসমুদ্রহিমাচল।

হেমন্তকালে জাত- হৈমন্তিক।

হাতির ডাক- বৃংহণ।

জনশূন্য স্থান- নির্জন

মধু সংগ্রহকারী পতঙ্গবিশেষ- মৌমাছি

জ্ঞানের সঙ্গে বিদ্যমান- সজ্ঞান

আপনাকে ভুলে থাকে যে- আপনভোলা

বিলম্বে নয় এমন- অবিলম্বে

স্থির নয় এমন- অস্থির

ফুল হতে জাত- ফুলেল

আলাপ করতে তৎপর- আলাপী

আলোচনার বিষয়বস্তু- আলোচ্য

মুক্তি কামনা করে যে- মুক্তিকামী

মৃত্তিকা দিয়ে নির্মিত- মৃন্ময়

স্রোত আছে যার- স্রোতস্বতী

প্রাচীন ইতিহাস- প্রত্নতাত্ত্বিক

প্রাণিদেহ থেকে লব্ধ- প্ৰাণিজ

গরু রাখার স্থান- গোহাল

ঢেউয়ের ধ্বনি- কল্লোল

রোগনাশক গাছগাছড়া- ভেষজ

আলো ছড়ায় যে পাখি- আলোর পাখি

পুবের বাতাস- পুবালি

গরু চরায় যে- রাখাল

শিক্ষা করছে যে- শিক্ষানবিশ

বিচিত্রতায় পূর্ণ যা- বৈচিত্র্যপূর্ণ

গাভির ডাক- হাম্বা

জানা আছে যা- জ্ঞাত

খাদ নেই যাতে- নিখাদ।

বিদেশে থাকে যে- প্রবাসী

বনে বাস করে যে- বনবাসী

পুতুল পূজা করে যে- পৌত্তলিক

রুপার মতো- রুপালি

আকাশ ও পৃথিবী- ক্রন্দসী

অন্বেষণ করার ইচ্ছা- অন্বেষা

মাটির তৈরি শিল্পকর্ম- মৃৎশিল্প

আঠা যুক্ত আছে যাতে- আঠালো।

চালচলনের উৎকর্ষ- সভ্যতা।

উদ্দাম নৃত্য- তাণ্ডব।

বিনা অপরাধে সংঘটিত হত্যা- গণহত্যা।

পুরুষানুক্রমিক- ঐতিহ্য।

চিত্রকর্মের কাঠামো- নকশা।

জীবন পর্যন্ত- আজীবন।

[1:20 pm, 16/10/2022] সংস্কৃত শিক্ষা কেন্দ্র: তুচ্ছ জ্ঞানে অবহেলা তাচ্ছিল্য –

  • ত্রাণ করেন যিনি – ত্রাতা
  • ত্রিকাল দর্শন করেন যিনি – ত্রিকালদর্শী

উদ্দাম নৃত্য তাণ্ডব

[] তার মতো তাদৃশ সুরের ধ্বনি তান

  • তিন নয়ন যার ত্রিনয়ন

[] অন্ধকার রাত্রি তামসী

  • তর্কশাস্ত্রে পটু – তার্কিক

তিন নয়নে বা লোচন যার ত্রিনয়না, ত্রিলোচনা

তিন পদের সমাহার – ত্রিপদী

তিন ফলের সমাহার – ত্রিফলা

তাল জ্ঞান নেই যার – তালকানা

[] তালু থেকে উচ্চারিত – তালব্য

। তিন বেণীর সমাহার ত্রিবেণী

। তিনটি সরলরেখা দ্বারা বেষ্টিত যে ক্ষেত্র – ত্রিভুজ

[] তিন ফলক যুক্ত শূল – ত্রিশূল

তিল মিশিয়ে রান্না করা ভাত – ত্রিসর

  • এক দিনে তিন তিথির যোগ – ত্র্যহস্পর্শ
  • তস্করের কাজ- তাস্কর্য

[] তির নিক্ষেপ করে যে – তিরন্দাজ

] তিল তিল করে আহৃত সৌন্দর্যে নির্মিত প্রতিমা

তিলোত্তমা

[ তীর নিক্ষেপে ওস্তাদ – তীরন্দাজ

থাবার আঘাত থাপড়

অতি কর্মনিপুণ ব্যক্তি – দক্ষ

দণ্ড দিবার যোগ্য – • দণ্ডনীয়

. ত্বরায় গমন করে যে- তুরগ

দেওয়া হয়েছে যা দত্ত

খাতাপত্র রাখার ঘর দপ্তরখানা

তুমুল ঝগড়া তুলকালাম

[ তুলা থেকে তৈরি – তুলট

[] ওজন পরিমাপক – তুলাদণ্ড

  • তুলা দ্বারা তৈরি – তুলোট

[] তুষের আগুনের মতো মর্মদাহী – তুষানল

→ যে তৃণাদি খেয়ে জীবণ ধারণ করে – তৃণভুক

তেজ আছে যার – তেজস্বী

সুদে টাকা খাটানো – তেজারতি

S

জায়া ও পতি দম্পতি

  • দর্প নাশ করে যে – • দর্পহারী/দর্শনাশী

■ দানের যোগ্য দাতব্য

[] বনের অগ্নি – দাবানল, , দাবাগ্নি

[] ফৌজদারী উচ্চ আদালত দায়রা

দর্শনশাস্ত্র জানেন যিনি দার্শনিক

[ তিন রাস্তার মোড় তেমাথা

■ দাসের ভাব দাস্য

তেলে যা ভাজা হয় তেলে ভাজা

[] নাই আবরণ যার – দিগম্বর

[ তিন ভাগের এক ভাগ তেহাই

→ তুষ্ট করা হয়েছে যা – তোষিত

বিভিন্ন দিক জয় করেছেন যিনি – দিগ্বিজয়ী

[ দেখার ইচ্ছা দিদৃক্ষ

— যা দীপ্তি পাচ্ছে দীপ্তমান

[] তোমার মতো তাদৃশ

→ দীপ্তি পাচ্ছে যা – দীপ্যমান

ত্যাগ করা হয়েছে যা – ত্যক্ত

  • ক্রমশই বর্ধিত হচ্ছে যা ক্রমবর্ধমান

যাকে শাসন করা দুঃসাধ্য দুঃশাসন
[1:21 pm, 16/10/2022] সংস্কৃত শিক্ষা কেন্দ্র: দীনের ভাব দৈন্য

এঁটেল ও বেলে মাটির মিশ্রণ দোআঁশ

→ যা সহজে অতিক্রম করা যায় না –

দুরতিক্রমনীয়/দুরতিক্রম্য

→ যা অনেক কষ্টে অধ্যয়ন করা যায় দুরধ্যয়

→ আরোগ্য হওয়া কঠিন এমন দুরারোগ্য

ক্রমাগত দুলছে এমন দোদুল্যমান

  • দুবার ফল ধরে যে গাছে দোফলা
  • দুষ্ট বা কদর্য আলাপ দুরালাপ

[] যে জমিতে দুবার ফসল হয় দো-ফসলা

  • দুই নদীর মধ্যবর্তী স্থান- দোয়াব

দুর্লভ বিষয় বা বস্তু লাভের আশা দুরাশা

দুষ্কর যেখানে গমন করা দুর্গম → জয় করা কঠিন এমন- দুর্জয়

[] দোহনের যোগ্য দোহনীয়

কন্যার পুত্র দৌহিত্র

দ্বারে থাকে যে দ্বারী

[] যা সহজে দমন করা যায় না- দুর্দম

] দমন করা কষ্টকর যাকে দুর্দমনীয়

[ অতি কষ্টে যা নিবারণ করা যায় দুর্নিবার

দুইবার জন্ম যার- দ্বিজ

  • দুবার উক্তি দ্বিরুক্তি

[ আকালের বছর দুবছর

] দুই দিকে অপ (জল) যার – দ্বীপ

→ যে কটু কথা বলে- দুর্বাক

” যা সহ্য করা যায় না দুর্বিষহ –

[] ভিক্ষার অভাব দুর্ভিক্ষ

দ্বীপে জন্ম হয়েছে যার দ্বৈপায়ন

দুরথীর যুদ্ধ দ্বৈরথ

যা ভেদ করা দুঃসাধ্য দুর্ভেদ্য

দুই অক্ষর বিশিষ্ট দ্ব্যক্ষর

→ যা সহজে মরে না দুর্মর

[] দুই প্রকার অর্থ যার দ্ব্যর্থ

[] যা সহজে লঙ্ঘন করা যায় না – দুর্লঙ্ঘ্য

  • দ্রব হয়েছে যা – • দ্রবীভূত

→ যা কষ্টে লাভ করা যায় দুর্লভ –

→ দেখার যোগ্য দ্রষ্টব্য

। সহজে যা পাওয়া যায় না দুষ্প্রাপ্য

ধন জয় করেন যিনি – ধনঞ্জয়

কষ্টে অতিক্রম করা যায় না দূরতিক্রম্য

  • ভবিষ্যৎ চিন্তা করে কাজ করে যে দূরদর্শী

ধর্মই আত্মা যার ধর্মাত্মা

  • ধর্মের প্রতি নিষ্ঠাবান ধর্মিষ্ঠ

[] ধারণ করার যোগ্য ধারণীয়

• দূরকে দেখার যন্ত্র দূরবিন

→ রঙ্গমঞ্চে দর্শনীয় চিত্রপট – দৃশ্যপট

ধারা ধরে চলে যা ধারাবাহিক

যা দেখা যাচ্ছে দৃশ্যমান

ঋণ শোধে অসমর্থ যে – দেউলিয়া

→ ধী শক্তির অধিকারী- ধীমান

ধীরে যে গমন করে ধীরগামী

→ পুনঃ পুনঃ দীপ্তি পাচ্ছে যা দেদীপ্যমান

  • ধূপের ধোঁয়া বা গন্ধ দ্বারা সুরভিত – ধূপায়িত

দেশের প্রতি প্রেম আছে যার দেশপ্রেমিক

→ ধূলায় পরিণত ধূলিসাৎ

ধোঁয়ার ন্যায় বর্ণযুক্ত – ধোয়াটে

অন্য দেশ দেশান্তর
দ্বীপ সমন্ধীয় দ্বৈপ।
[1:22 pm, 16/10/2022] সংস্কৃত শিক্ষা কেন্দ্র: – ধ্যান করা হয়েছে এমন – ধ্যাত

ধ্যানে যিনি মগ্ন ধ্যানস্থ

  • নূপুরের শব্দ নিক্বণ
  • ধ্যান করেন যিনি – ধ্যানী – চিত্রকর্মের কাঠামো নকশা

যা গমন করতে পারে না – নগ

[ গণনার অযোগ্য নগণ্য

নদী মাতা যে দেশের · নদীমাতৃক

। নদী মেখলা যে দেশের নদীমেখলা

  • নূপুরের ধ্বনি নিক্কণ

→ খাদ নেই যাতে নিখাদ [] টোল পড়েনি এমন- নিটোল

নিতান্ত দগ্ধ হয় যে সময় – নিদাঘ

  • নিন্দার যোগ্য নিন্দা নিন্দনীয়

[] যা নিঃশেষে পান করা হয়েছে – নিপীত

→ প্রায় রাজি নিমরাজি

অর্ধেক রাজী- নিমরাজী

যিনি নিয়ন্ত্রণ করেন নিয়ন্তা

→ নাই পক্ষ যার নিরপেক্ষ

অহংকার নেই এমন নিরহংকার

। যার আকার নেই নিরাকার

নতুন অন্নের উৎসব নবান্ন

] নতুন সূর্য – নবারুণ

[] নতুন বিবাহিত স্ত্রী – নবোঢ়া

আকাশে যে বিচরণ করে নভোচারী

→ আকাশ পথে যে যান ব্যবহার করা যায় –

নভোযান

[ আমিষের অভাব নিরামিষ

যার কোন উপায় নেই – নিরুপায়

→ যা খনন করা হয়েছে – নমিত

[] চিরস্থায়ী নয় যা নশ্বর

প্রবল বায়ুর আঘাতজনিত শব্দ – নির্ঘাত

D যার ঘৃণা নেই – নির্ঘণ

জনশূন্য স্থান নির্জন

যে ধরলে আর ছাড়ে না নাছোড়বান্দ

→ অতি দীর্ঘ নয় – নাতিদীর্ঘ

  • খুব শীত নয় খুব গরমও নয়- নাতিশীতোষ্ণ

সিংহের ধ্বনি নাদ

নির্বাচনের যোগ্য – নিৰ্বাচ্য

[] ভোগ যন্ত্রণা থেকে নিষ্কৃতি লাভ – নির্বাণ

সংসারের প্রতি বিরাগ – নির্বেদ

বোধ নাই যার- নির্বোধ

• নৌ বা নৌকা চলাচলের যোগ্য নাব্য

→ কোন কিছুতেই ভয় নেই যার – নির্ভীক,

অকুতোভয়

[ মক্ষিকাও প্রবেশ করতে পারে না যেখানে

। যার নাম লিখিত আছে – নামাঙ্কিত

[] নাসিকা থেকে উচ্চারিত – নাসিক্য

নির্মক্ষিক

→ ঈশ্বরে যার বিশ্বাস নেই – নাস্তিক

নাই মমতা যার নির্মম

সাপের খোলস – নির্মোক

। যার নিজের বলতে কিছু নেই – নিঃস্ব

[] তরুলতা বেষ্টিত স্থান – নিকুঞ্জ

নিষ্কাশিত সারবস্তু – নির্যাস

বালকত্ব কাটেনি যার- বালকত্ব

নৌকা চালায় যে- নাবিক

নামের চিহ্ন- নামাঙ্ক

আগামীকালের পরের দিন- পরশু

উদ্ভিদের নতুন পাতা – পল্লব/কিশলয়

[] নিশাকালে চরে বেড়ায় যে – নিশাচর

[ গভীর রাত্রি – নিশীথ

পেছনে সরে যাওয়া- পশ্চাদপসরণ

. পশুর তুল্য আচরণ পশ্বাচার

[] পাঁচমিশালি মসলা – পাঁচফোড়ন

যাকে হত্য করা হয়েছে – নীত [] ঈষৎ নীলবর্ণ – নীলাভ

[] ন্যায় শাস্ত্র জানেন যিনি – নৈয়ায়িক

[] ন্যাকার ভাব ন্যাকামি

ধুলার মতো যার রং পাংশুল

রন্ধনের যোগ্য পাচ্য

  • যার পিঠ বেঁকে গিয়েছে – ন্যুজ্ব

খেয়া পার করে যে পাটনী

লিখিত খসড়া পাণ্ডুলিপি

পঙ্কে জন্মে যা পঙ্কজ

— পঞ্চবর্ষের বমাহার – পঞ্চবটী

  • পা ধুইবার জল – পাদ্য

[] পথিকের বিশ্রাম ও আহারাদি করার গৃহ –

পঞ্চ আনন যার পঞ্চানন

পান্থশালা

পা মোছার জন্য আস্তরণ – পাপোশ

] পট আঁকেন যিনি – পটুয়া

পড়া হয়েছে যা পঠিত

→ পড়ার উপযুক্ত পঠিতব্য

] পণ্ডিত হয়েও যে মূর্খ – পণ্ডিতমূর্খ

[] আপনাকে পণ্ডিত মনে করে যে পণ্ডিতম্মন্য

যে নারী স্বামীর প্রতি অনুরক্তা – পতিব্রতা

→ পথ দিয়ে পায়ে হেঁটে চলে যে – পথিক

→ কোনো বিষয়ে নতুন পথ নির্দেশ করে যে –

পথিকৃৎ

• পায়ে হাঁটা পদব্রজ

→ পরলোক সম্বন্ধীয় পারলৌকিক

পৃথিবীর সাথে সম্পর্কযুক্ত যা – পার্থিব

পলিমাটি সম্বন্ধীয় পাললিক

যা পশুর উপযুক্ত পাশবিক

[] পিতার ভ্রাতা পিতৃব্য

0 পান করার ইচ্ছা পিপাসা

  • হাতির বাসস্থান পিলখানা

যে কৃৎসা রটায় পিশুন

প্রচুর দুধ দেয় যে গাভী- পয়স্বিনী

  • যার পীড়া হয়েছে – – পীড়িত

যে গাছ অন্য গাছকে আশ্রয় করে বাঁচে পরগাছা

  • ঈষৎ পীতবর্ণ – পীতাভ

পরের ভালো দেখে যার মন কাতর হয় – পরশ্রীকাতর

→ পরের অধীন পরাধীন

পরের অন্নে যে বেঁচে থাকে পরান্নজীবী

। পরিণাম চিন্তা করে যে কাজ করে – পরিণামদর্শী

→ যাঁর কীর্তি শ্রবণে পূণ্য জন্মে – পুণ্যশ্লোক

[] নারীর (বিধবা) পুনরায় বিয়ে হয়েছে – পুনর্ভু

পুবের বাতাস পুবালি

ফুল দিয়ে তৈরি গয়না পুষ্পাভরণ – যে তিথিতে পূর্ণচন্দ্রের উদয় হয় – পূর্ণিমা

  • যা পূর্বে দেখা হয়েছে – পূর্বদৃষ্ট

বংশের ঊর্ধ্বতন পুরুষ – পূর্বপুরুষ

[ অক্ষির অগোচর পরোক্ষ

Leave a Comment